বিস্তারিত সংবাদ

৩রা ফেব্রুয়ারী জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন আহ্বান করার সাথে বনপা’র কোন সম্পর্ক নেই

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও তথ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ :

বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এ্যাসোসিয়েশন বনপা’র নাম ব্যবহার করে ৩রা ফেব্রুয়ারী শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবৈধ ভাবে মানববন্ধন আহ্বানকারী বনপা’র স্বঘোষিত সভাপতি সুভাষ সাহা ও স্বঘোষিত সাধারণ সম্পাদক এ এইচ এম তারেক চৌধুরীর সাথে বনপা’র কোন সম্পর্ক নেই বলে এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন বনপা’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শামসুল আলম স্বপন ও সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জি. রোকমুনুর জামান রনি।

নেতৃবৃন্দ জানান বনপা’র পক্ষ থেকে ৩রা ফেব্রুয়ারী জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে কোন মানববন্ধন আহ্বান করা হয়নি । সংগঠনের সুনাম-সুখ্যাতি বিনষ্ট করার জন্য সুভাষগং অতীতের মত ঘোলাপানিতে মাছ শিকার করার চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে। সেই ---সাথে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য চক্রটি গোপন ষড়যন্ত্র করছে বলে প্রতীয়মান।
 

প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে আরো উল্লেখ করা হয়, মতিঝিলের ব্যাংক পাড়ায় অফিস নিয়ে অসাধু ব্যক্তিদ্বয় ব্যাংকসহ সরকারি ও বে-সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের চাঁদাবাজি ও সংগঠনের নাম ব্যবহার করে অনৈতিক সুবিধা আদায় করার অভিযোগে এবং সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকার কারণে অনলাইন নিউজ পোর্টাল মালিকদের জনপ্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এ্যাসোসিয়েশন বনপা থেকে তাদেরকে ২০১৪ সালে সর্বসম্মতি ক্রমে বহিষ্কার করা হয়। এর পর থেকে উল্লেখিত ব্যক্তিদ্বয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের মন্ত্রী সভায় সদ্য যোগদানকারি একজন মন্ত্রীর সাথে বিভিন্ন সময় ছবি তুলে ফেসবুক ও তাদের নিউজ পোর্টালে নিউজ দিয়ে তাদের প্রতি ওই মন্ত্রীর আশীর্বাদ আছে এমনটি প্রচার করে ব্যক্তি স্বার্থে ধান্ধায় লিপ্ত রয়েছে। সুভাষ গংদের অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য বনপা’র সকল সদস্যের প্রতি অনুরোধ জানানো হলো।

সেই সাথে বনপার নাম ব্যবহারকারি এই প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও তথ্যমন্ত্রীকে বনপা’র পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হলো।

 

বার্তাপ্রেরক:
ইঞ্জি. রোকমুনুর জামান রনি
সাধারণ সম্পাদক
বনপা
মোবা: ০১৭২২১৫৮১৩০


নিউজ